তিন মাসে ভারত থেকে রেলপথে এসেছে এক লাখ টন চাল

তিন মাসে ভারত থেকে রেলপথে এসেছে এক লাখ টন চাল

নিউজ ডেস্ক: অভ্যন্তরীণ চাহিদা পূরণের জন্য ভারত থেকে কয়েক লাখ টন চাল আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ। আমদানি করা এসব চালের একটা বড় অংশ আসছে রেলপথে। বাংলাদেশ রেলওয়ের তথ্য বলছে, চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে ১ লাখ ৩৪৩ টন চাল রেলপথে এসেছে। একই সময়ে ভারত থেকে আমদানি করা ২ লাখ ৬৭ হাজার ৪৪৬ গম এসেছে রেলপথে।

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, চলতি বছরের জানুয়ারিতে পাঁচটি ট্রেনে ভারত থেকে বাংলাদেশে আনা হয় ১১ হাজার ৬৭৮ টন চাল। ফেব্রুয়ারিতে ১০টি ট্রেনে আসে ২০ হাজার ৯৫০ টন চাল। আর মার্চে ২৮টি ট্রেনে আসে ৬৭ হাজার ৭১৫ টন। এর বাইরে চলতি মাসের প্রথম ১০ দিন আটটি ট্রেনে এসেছে আরো ১৮ হাজার ৫ টন চাল।

চালের পাশাপাশি একই সময়ে ভারত থেকে আমদানি করা ২ লাখ ৬৭ হাজার ৪৪৬ টন গম পরিবহন করা হয়েছে রেলপথে। এর মধ্যে জানুয়ারিতে ২৬টি ট্রেনে ৬৩ হাজার ৩৮ টন, ফেব্রুয়ারিতে ৪০টি ট্রেনে ১ লাখ ৩২০ টন, মার্চে ৩২টি ট্রেনে ৭৩ হাজার ৬১৫ টন ও ১০ এপ্রিল পর্যন্ত ১৪টি ট্রেনে আনা হয়েছে ৩০ হাজার ৪৭৩ টন গম।

রেলপথে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার বাণিজ্য এখন পর্যন্ত একপক্ষীয়। বাংলাদেশ কেবল রেলপথ ব্যবহার করে ভারত থেকে পণ্য আমদানি করতে পারে, রফতানি করতে পারে না। চাল ও গম ছাড়াও রেলপথের মাধ্যমে পাথর, ভুট্টা, ভোজ্যতেল, ফ্লাই অ্যাশ, পার্সেল, কনটেইনার, মোটরযান, ডিজেল, পেঁয়াজ, রসুন, শিল্পের কাঁচামালসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য ভারত থেকে আমদানি করে বাংলাদেশ।

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, বর্তমানে প্রতি মাসে ১০০টিরও বেশি পণ্যবাহী ট্রেন ভারত থেকে বাংলাদেশে আসছে। গত জানুয়ারিতে ১৩২টি ট্রেনে আসে তিন লাখ টনের বেশি পণ্য। ফেব্রুয়ারিতে ১১১টি ট্রেনে আসে ২ লাখ ৬২ হাজার ৫৩৬ টন পণ্য। আর মার্চে ১৪০টি ট্রেনে প্রায় ৩ লাখ ২০ হাজার টন পণ্য আনা হয়। রেলপথে ভারত থেকে আমদানি পণ্য পরিবহনের এ ধারা চলতি মাসেও অব্যাহত রয়েছে। ১০ এপ্রিল পর্যন্ত ৫৫টি ট্রেনে ১ লাখ ২০ হাজার ৭৭৭ টন পণ্য এসেছে বাংলাদেশে।

এ প্রসঙ্গে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা বলেন, ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে বর্তমানে প্রত্যেক মাসে গড়ে ১৩০টির বেশি ট্রেন চলাচল করছে। এসব ট্রেনগুলোয় ব্যাপকভাবে চাল ও গম পরিবহন করা হচ্ছে। চারটি সীমান্ত দিয়ে পণ্যবাহী ট্রেনগুলো চলাচল করছে। চলমান করোনা মহামারীর মধ্যে যেন বাজারে নিত্যপণ্যসহ বিভিন্ন পণ্যের ঘাটতি তৈরি না হয়, সেজন্য আমরা ভারত থেকে রেলপথে পণ্য পরিবহন অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। শুধু চলমান করোনা পরিস্থিতি নয়, সার্বিকভাবে ভারতের সঙ্গে রেলপথে পণ্য পরিবহন বৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে গত ২২ মার্চ বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। দুই দেশের মধ্যে রেলপথে যাত্রী পরিবহন এখনো বন্ধ। তবে রেলে পণ্য পরিবহন কার্যক্রমও ওই সময় বন্ধ হলেও গত বছরের ৯ মে থেকে তা পুনরায় চালু হয়েছে। প্রায় দেড় মাস বন্ধ থাকার পর ৯ মে ভারত থেকে পেঁয়াজবাহী একটি ট্রেন গেদে-দর্শনা সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। এরপর গত ২৬ জুলাই প্রথমবারের মতো রেলপথে ভারত থেকে ৫০টি কনটেইনারে সাবান, শ্যাম্পু, টেক্সটাইল ফ্যাব্রিকসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি করা হয়। কনটেইনার ট্রেনটি ভারতের পেট্রাপোল বন্দর হয়ে বাংলাদেশের বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। গত বছরের জুনে প্রথমবারের মতো ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে চলাচল করা ট্রেনের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়ে যায়।

সূত্র:বণিক বার্তা, এপ্রিল ১৬, ২০২১

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।