শিরোনাম

রেলওয়ে অব্যবস্থাপনার: লংমার্চ শেষে রেলে মহাপরিচালককে স্মারকলিপি

রেলওয়ে অব্যবস্থাপনার: লংমার্চ শেষে রেলে মহাপরিচালককে স্মারকলিপি

।। নিউজ ডেস্ক।।

দেশ রেলওয়ের অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতি নিরসনে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে টানা ১২ দিন অবস্থানের পর লংমার্চ শেষে রেলের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদারকে ৬ দফা দাবি সংবলিত স্মরকলিপি দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন রনি।

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দুপুরে কমলাপুর রেলস্টেশনের বাইরের প্রধান সড়ক থেকে শুরু করে রেলপথ মন্ত্রণালয় পর্যন্ত লংমার্চ করেন। প্রথমে টিএসসি গিয়ে কিছুক্ষণ অবস্থানের পর রেল ভবনে গিয়ে মহাপরিচালকের কাছে ছয় দফা দাবি জানান। এরপর সেখানে সংবাদ সম্মেলন করেন। বেলা সাড়ে ৩টার দিকে ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদারকে এ স্মারকলিপি দেন।

স্মারকলিপি হাতে পেয়ে মহাপরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ মজুমদার বলেন, দাবিগুলো যৌক্তিক এবং তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে মহাপরিচালকের এ আশ্বাসে আন্দোলন থেকে সরতে রাজি নন আন্দোলরত মহিউদ্দিন রনি।

৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে তিনি বলেন, সমস্যা সমাধানের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে আশ্বাস আসতে হবে। এ সময়ের মধ্যে দাবি বাস্তবায়ন না হলে আরও বড় পরিসরে আন্দোলনে যাবেন তিনি।

দাবিগুলো হলো:

১. টিকিট ক্রয়ের ক্ষেত্রে সহজ.কম কর্তৃক যাত্রী হয়রানি অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। হয়রানির ঘটনায় তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

২. যথোপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধ করতে হবে।

৩. অনলাইনে কোটায় টিকিট ব্লক করা বা বুক করা বন্ধ করতে হবে, সেইসঙ্গে অনলাইন-অফলাইনে টিকিট ক্রয়ের ক্ষেত্রে সর্বসাধারণের সমান সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে।

৪. যাত্রী চাহিদার সঙ্গে সংগতি রেখে ট্রেনের সংখ্যা বৃদ্ধিসহ রেলের অবকাঠামো উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।

৫. ট্রেনের টিকিট পরীক্ষক ও তত্ত্বাবধায়কসহ অন্যান্য দায়িত্বশীলদের কর্মকাণ্ড সার্বক্ষণিক মনিটর, শক্তিশালী তথ্য সরবরাহ ব্যবস্থা গড়ে তোলার মাধ্যমে রেলসেবার মান বৃদ্ধি করতে হবে।

৬. ট্রেনে ন্যায্য দামে খাবার বিক্রি, বিনামূল্যে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ও স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ জুন রাজশাহী ভ্রমণের জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইটে ঢাকা-রাজশাহীর টিকিট কাটার চেষ্টা করেন মহিউদ্দিন রনি। তার অভিযোগ টাকা কেটে নেওয়া হলেও তিনি তার চার টিকিটের ২ হাজার ৬৮০ টাকাও ফেরত পাননি।

তিনি আরও অভিযোগ করেন, তিনি যখন রেলওয়ের টিকিটিং পার্টনার সহজ সিনেসিস ভিনসেন জেভি এর কাছে অভিযোগ করতে যান। তখন তার সামনে কোম্পানিটির কর্মীদের বেশি দামে টিকিট বিক্রির দৃশ্য দেখতে পান।

সূত্র:বার্তা২৪.কম


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।