নতুন ২০০ কোচ আমদানি করা হবে : রেলমন্ত্রী

নতুন ২০০ কোচ আমদানি করা হবে : রেলমন্ত্রী

রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, যাত্রীসেবার মান উন্নয়নে ট্রেনের আরও নতুন ২০০ কোচ বিদেশ থেকে আমদানি করা হবে। রেলের উন্নয়নের জন্য যে সব জায়গা প্রয়োজন দখলে থাকা ওই সব জায়গা বৃহত্তর স্বার্থে ছেড়ে দিতে হবে। এ কারণে রেলের সম্পত্তি উদ্ধার করতে উচ্ছেদ অভিযান চলছে। আগামীতে এ অভিযান আরো জোরদার করা হবে। রেলেওয়ের লোকশান কমাতে আরো সময় লাগবে। 

আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে রংপুরের বদরগঞ্জ রেলস্টেশন পরিদর্শন করার সময় এক পথসভায় তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন রংপুর-(বদরগঞ্জ-তারাগঞ্জ) আসনের এমপি আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক। এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, বদরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বি সুইট, পৌর মেয়র উত্তম কুমার সাহা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সস্পাদক আহসানুল হক চৌধুরী টুটুল প্রমুখ।

পথসভায় রেলমন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের এলাকার(রংপুর) অনেক দুর্নাম আছে। এ কারণে কেউ বিনা ভাড়ায় রেলযাত্রা করবেন না। আগামীতে মিটারগেজের পাশাপাশি ব্রডগেজ লাইন তৈরি হবে। এ জন্য রেলের অনেক সম্পত্তি উদ্ধার করতে হবে। বিগত দিনে বিএনপি-জামায়াতের লোকজন অনেক সম্পত্তি দখল করে নিয়েছে। ওই সব জায়গা দখলমুক্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, আগামী ১৬ অক্টোবর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কুড়িগ্রাম থেকে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’ ট্রেনের উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। এ কারণে স্টপেজ দেওয়া স্টেশনগুলোর পরিদর্শন শেষে আজ মঙ্গলবার বদরগঞ্জে আসেন তিনি। 

কারণ ১৯৯৮ সালের ২৩ জুন বঙ্গবন্ধু সেতু উদ্বোধনের পর মানুষের প্রত্যাশা ছিল এই রুট দিয়ে সরাসরি ট্রেন চলাচল করবে। কিন্তু দীর্ঘ ২১ বছরেও এ এলাকার মানুষের সেই আশা পূরণ হয়নি।

নতুন ট্রেন সম্পর্কে রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের লালমনিরহাট বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেসে ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা পিটি ইনকা এমজি কোচ সংযোগ করা হবে। যাত্রী পরিবহনের জন্য এতে ১১টি কোচ থাকবে। এই ট্রেনটি চালু হওয়ার পাশাপাশি রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের জন্য বরাদ্দকৃত কুড়িগ্রামের শাটল ট্রেনটিও চলমান থাকবে। ফলে কুড়িগ্রামবাসী দুটি আন্তঃনগর ট্রেনের সুবিধা পাবেন। ট্রেনটি কুড়িগ্রাম-রংপুর-বদরগঞ্জ, পার্বতীপুর-সান্তাহার-ঢাকা রুটে চলাচল করবে।  সপ্তাহে ৬ দিন সকাল ৭টা ২০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে কুড়িগ্রাম রেলস্টেশন ত্যাগ করবে। আর ঢাকা থেকে কুড়িগ্রামের উদ্দেশে ছাড়বে রাত ৮টা ৪৫ মিনিটে। বুধবার এটি বন্ধ থাকবে। প্রস্তাবিত এ ট্রেনটির বিরতি থাকছে (উভয় পথে) রংপুর-বদরগঞ্জ-পার্বতীপুর-জয়পুরহাট-সান্তাহার-মাধবনগর-ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশন-ঢাকা। কুড়িগ্রাম থেকে ঢাকা যাত্রাকালীন এতে মোট ৬২৬টি আসন থাকবে। আর ঢাকা থেকে কুড়িগ্রাম ফেরার সময় এতে ৫৯৬টি আসন থাকবে। এর মধ্যে শোভন চেয়ার ৫১০ টাকা, এসি চেয়ার ৯৭২ টাকা, এসি সিট ১১৬৮ টাকা এবং এসি বার্থ ১৭৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে কুড়িগ্রামের জন্য ৪০ ভাগ আসন এবং রংপুরের জন্য ৩০ ভাগ ও বদরগঞ্জের জন্য ৩০ ভাগ আসন বরাদ্দ থাকবে।

সুত্র:কালের কন্ঠ, ৮ অক্টোবর, ২০১৯ 

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।