শিরোনাম

সিলেট-বিশ্বনাথ-ছাতক রেলওয়ের তিন স্টেশন পরিত্যক্ত

সিলেট-বিশ্বনাথ-ছাতক রেলওয়ের তিন স্টেশন পরিত্যক্ত

নিউজ ডেস্ক:

সিলেট-বিশ্বনাথ-ছাতক রেলওয়ে সেকশনের খাজাঞ্চীগাঁও, সত্পুর ও আফজালাবাদ স্টেশন পরিত্যক্ত হয়ে পড়েছে। ধীরে ধীরে বিলীন হয়ে যাচ্ছে এই তিনটি রেলওয়ে স্টেশন। নিয়ম রক্ষায় ট্রেন যাতায়াত করলেও দীর্ঘদিন যাবত্ খাজাঞ্চীগাঁও ও আফজালাবাদ স্টেশনটি রয়েছে তালাবদ্ধ। ফলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে জনসাধারণকে।
জানা গেছে, সিলেট থেকে ছাতক পর্যন্ত প্রায় ৩৫ কি.মি দীর্ঘ রেলপথটি আনুমানিক ১৯৫৬ সালে নির্মাণ করা হয়। ওই লাইন ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত ট্রেন যাত্রীদের সেবায় একনিষ্ঠ ছিল। ট্রেনে প্রায় ৪৫ মিনিটে ছাতক হতে সিলেট পৌঁছতে পারতেন যাত্রীরা। কিন্তু ১৯৮৫ সাল থেকে ওই রেলপথে মন্দাভাব দেখা দেওয়ায় নির্দিষ্ট সময়ে ট্রেন যাত্রা শুরু করে না, যার কারণে যাত্রীসাধারণ সময়মতো গন্তব্যে পৌঁছতে পারেন না। প্রায় ১৫ বছর আগে সত্পুর রেলওয়ে স্টেশনটি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর স্টেশনের মূল্যবান মালামাল অযত্ন আর অবহেলায় নষ্ট হতে থাকে। এক পর্যায়ে এই স্টেশনের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যায়। অপর দুটি স্টেশনের (খাজাঞ্চীগাঁও ও আফজালাবাদ) প্লাটফর্ম ও অফিসের অবস্থা বর্তমানে খুবই জরাজীর্ণ। এখানে নেই কোনো স্টেশন মাস্টার ও টিকেট ব্যবস্থা। এমনকি স্টেশনে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীও নেই। তবে প্রতিদিন দু’বার ট্রেন চলাচল করলেও দীর্ঘদিন যাবত্ তালাবদ্ধ রয়েছে স্টেশন দুটি। অযত্ন-অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে ভবনটি।

 

সিলেট শহরের ব্যবসায়ী বরকত আলী, সামছুল আলম, ছামির আলী ও শামীম আহমদসহ ট্রেনের বেশ কয়েকজন যাত্রী অভিযোগ করেন, দীর্ঘদিন ধরে খাজাঞ্চী ও আফজালাবাদ স্টেশনটি বন্ধ রয়েছে। আর সত্পুর স্টেশনের কোনো অস্তিত্বই নেই। সিলেট ও ছাতক রেলওয়ে স্টেশন ছাড়া পথে তিনটি স্টেশন (আফজালাবাদ, সত্পুর ও খাজাঞ্চীগাঁও) তালাবদ্ধ থাকায় যাত্রীরা টিকেট কাটতে পারেন না। তাই যাতায়াতের সুবিধার্থে ও ট্রেন চালু রাখার স্বার্থে যাত্রীরা নিজ উদ্যোগে ভাড়া উত্তোলন করেন এবং তা ট্রেন পরিচালকের কাছে হস্তান্তর করেন। আর ওই টাকা আত্মসাত্সহ নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করছেন ট্রেন পরিচালক অনিকুর রহমান। ট্রেন পরিচালক অনিকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও তাকে অপসারণের জন্য তারা সিলেট রেলওয়ের স্টেশন মাস্টার, জিআরপি থানা ও রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে বার বার দাবি জানালে এখনো কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি বলে তারা অভিযোগ করেন।
এদিকে অভিযুক্ত অনিকুর রহমানের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

 

সিলেট রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার কাজী শহিদুল ইসলাম বলেন, জনবল সংকট থাকায় ওই তিনটি স্টেশন (খাজাঞ্চীগাঁও, সত্পুর ও আফাজালাবাদ) বন্ধ রয়েছে। সরকার চাইলে স্টেশনগুলোতে লোকবল নিয়োগ দিয়ে আবারো কার্যক্রম শুরু করতে পারে। আর ট্রেন পরিচালক (গার্ড) অনিকুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করে তিনি বলেন, যাত্রীদের অভিযোগের পর তাকে (অনিকুর রহমান) সিলেট-ছাতক লাইন থেকে অন্যত্র সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।
সুত্র:ইত্তেফাক, ০৪ জুলাই, ২০১৮

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।