পার্বতীপুর স্টেশনে ট্রেনের তেল চুরির দায়ে দুইজনকে বহিষ্কার

পার্বতীপুর স্টেশনে ট্রেনের তেল চুরির দায়ে দুইজনকে বহিষ্কার

নাজমুস সালেহী:

দিনাজপুরের পার্বতীপুর স্টেশনে হলদিবাড়ি নামক জায়গায় ট্রেনের তেল চুরির ঘটনায় ট্রেন চালক হোসেন সেলিম ও সহকারী চালক উজ্জল মিয়াকে বহিষ্কার করা হয়েছে।এছাড়াও রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চালের পক্ষ থেকে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রেলের পশ্চিমাঞ্চলের প্রধান মেকানিক্যান ইঞ্জিনিয়ার কুদরত-ই-খুদা।

তিনি বলেন, তাদের বিরুদ্ধে রেলের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হয়েছে আদালতের মাধ্যমে তাদের বিচার করা হবে।

রেলওয়ে নিরাপত্তাবাহিনীর(আর এন বি) পার্বতীপুর চৌকির প্রধান পরিদর্শক এমদাদ হোসেনের সাথে কথা বলে জানা যায়, খুলনা থেকে তেলবাহী একটি ট্যাংকার পার্বতীপুরে আসছিল। মাঝপথে পার্বতীপুর স্টেশনের কাছাকাছি হলদিবাড়ি নামক স্থানে ট্রেনটিকে থামানো হয়। সে সময় ট্রেনে থাকা দুইজন আর এন বি সদস্য দেখতে পান ট্রেনের ইঞ্জিন থেকে তেল চুরি করা হচ্ছে। পরে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা পার্বতীপুর চৌকিতে খবর দিলে সেখান থেকে কয়েকজন নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্য গিয়ে তাদের আটক করে।

এমদাদ হোসেন জানান, এসময় তাদের কাছ থেকে তিন বস্তা মিলে ২১০ লিটার তেল উদ্ধার করা হয়। এবং ট্রেন চালক হোসেন সেলিম, সহকারী চালক উজ্জল মিয়া ও বাইরের একজন তেল ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়।

তিনি জানান, রেলের এই কর্মচারীরা বাইরের তেল কারবারিদের সাথে নিয়ে রেলের তেল চুরির সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছেন। আগে থেকে ওঁৎ পেতে তেল চোরদের সুবিধামতো একটি জায়গায় ট্রেন থামিয়ে তেল চুরি করা হয়। আটককৃত হাসান আলী পার্বতীপুরের ট্রেনের চোরাই তেল কারবারিদের একজন। লকডাউনের সময় এই অঞ্চলে সম্প্রতি তেল চুরির ঘটনা বেড়েছে তাই তারা আগে থেকেই ফাঁদ পেতে ছিলেন বলে জানান এমদাদ হোসেন।


লকডাউনের সময় যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকলেও চালু রয়েছে পণ্যবাহী ট্রেন। এই পণ্যবাহী ট্রেন থেকে পশ্চিমাঞ্চলে বেড়েছে তেল চুরির ঘটনা।

রেলের কর্মকর্তারা বলছেন, লকডাউনের কারণে সব কিছু প্রায় বন্ধ রয়েছে, ফলে কিছুটা সুযোগ হয়েছে তেল চুরির। ফলে লকডাউনের মধ্যে রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলে বেড়েছে তেল চুরির ঘটনা। কয়েকদিনের ব্যবধানে রাজশাহীতেই তিনবার তেল চুরির ঘটনা ঘটেছে। এসব ব্যাপার মাথায় রেখে নিরাপত্তা জোরদার করার পাশাপাশি নিরাপত্তাবাহিনীর টহল জোরদার করার কথা জানিয়েছে পশ্চিমাঞ্চলের কর্মকর্তারা।

রেলের কর্মচারীদের বিরুদ্ধে তেল চুরির অভিযোগ বহু পুরানো। মাঝে মধ্যেই খবর আসে গণমাধ্যমে, এটা রেলের জন্য খুবই বিব্রতকর জানিয়ে রেলমন্ত্রণালয়ের অতিঃসচিব মাহবুব কবির মিলন বলেন, তেল চুরির অপবাদ ঠেকাতে শক্তপদক্ষেপ নিবো আমরা। সব ট্রেনেই তেলের ইঞ্জিনের সাথে ব্যবহার করা হবে প্রযুক্তির।

সাময়িকভাবে যেসব স্পটে তেল চুরির প্রবণতা আছে সেখানে অতিরিক্ত নিরাপত্তাকর্মী নিয়োগ ও টহল বাড়িয়ে নজরদারি করা হবে। যেসব ফাঁক ফোকরের কারণে তেল চুরির ঘটনা ঘটে তার সব কিছুকে পর্যালোচনা করে যত দ্রুত সম্ভব প্রযুক্তির আওতায় আনা হবে। এবং অভিযুক্ত কর্মচারীদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।

সূত্র:সময়টিভি.কম , ১৭-০৫-২০২০

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।