হুমকির মুখে সোনাহাট রেল সেতু

হুমকির মুখে সোনাহাট রেল সেতু

আরমান আলী : কুড়িগ্রামের সোনাহাট পিসি গার্ডার সেতুর সয়েল কন্ডিশন সমস্যা, জমি অধিগ্রহণসহ সেতুর ডিজাইন রিভিউ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ না দেয়ায় ১৭ মাস সেতুর নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে। ফলে হুমকির মুখে প্রায় ১৪২ বছর বয়সী সোনাহাট রেল সেতুটি। ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ভারি যানবাহন। যে কোনো সময় ঘটতে পারে ভয়ানক দুর্ঘটনা।

সোনাহাট স্থল বন্দর দিয়ে ওভার লোডের মাধ্যমে প্রতিদিন প্রায় দুইশত থেকে তিনশ পাথর বোঝাই ট্রাক পারাপারের কারণে সেতুটি ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। যেকোন মুহূর্তে ভেঙে পড়ার উপক্রম সেতুটি। দুই পাড়ের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হলে অর্থনৈতিক উন্নয়নসহ দুর্ভোগে পড়বেন বন্দর ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ। তাই দ্রুত পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর।

জানা গেছে, ২০১৮ সালে একনেক বৈঠকে কুড়িগ্রামের সোনাহাট স্থলবন্দর সড়কের দুধ কুমার নদের ওপর ব্রিটিশ আমলের ঝুঁকিপূর্ণ রেল সেতুর দক্ষিণে ৬৪৫ মিটার দৈর্ঘ পিসি গার্ডার সেতু ২৩২ কোটি টাকায় নির্মাণের অনুমোদন হয়। সেতুটির ১৩টি পিলারের উপর দাঁড়িয়ে থাকবে। সেতুর দুই এ্যাপার্টমেন্টসহ পিলারের জন্য মোট ১৫৮টি পাইলিং করা হবে। এছাড়া সেতুর উভয় দিকে ২ হাজার ৩২০ মিটার সংযোগ সড়ক ও ৮১৪ মিটার তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হবে। পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এমএম বিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড ২২ জুলাই ২০১৯-এ নির্মাণ কাজ শুরু করেন এবং ২২ জানুয়ারি ২০২১-এ কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও সেতুর সয়েল কন্ডিশন সমস্যা, জমি অধিগ্রহণসহ সেতুর ডিজাইন রিভিউ সংশ্লিষ্ট সড়ক ও জনপথ বিভাগ সংশোধন করতে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করায় নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে। নতুন পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ শেষ হওয়ার আগেই পুরাতন রেল সেতুটি ভেঙে পড়ার আশংকা শতভাগ বলে মনে করছেন অভিজ্ঞ মহল।

এদিকে জেলার সীমান্তবর্তী ভুরুঙ্গামারী উপজেলার বঙ্গসোনাহাট, বলদিয়া, চর ভুরুঙ্গামারী, আন্ধারীঝাড় ও তিলাই, নাগেশ্বরী উপজেলার কচাকাটা, কেদার, বল্লভের খাস এবং নারায়ণপুর ইউনিয়নের সঙ্গে উপজেলা সদরের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এই সোনাহাট সেতু। সোনাহাট স্থলবন্দরের সঙ্গে যোগাযোগ এ সেতুর মাধ্যমে সারা বাংলাদেশের।

১৮৭৯ সালে তৎকালীন নর্দান বেঙ্গল রেলওয়ে, বেঙ্গল ও আসামের সঙ্গে যোগাযোগ সুবিধা সম্প্রসারণের লক্ষে দুধকুমর নদের উপর প্রায় ৫০০ মিটার লম্বা সোনাহাট রেলসেতু নামে সেতুটি নির্মাণ করে। ব্রিটিশ শাসনামল শেষে ১৯৪৭ সালে পাক-ভারত বিভক্তির পর সেতুটির উপর দিয়ে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে পড়ে। ১৯৭১ নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানটি সেতুটির আয়ুষ্কাল ১০০ বছর বেঁধে দেয়া হলেও বর্তমান সেতুটির বয়স প্রায় ১৪২ বছর। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এমএম বিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড ও ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার্সের প্রকল্প পরিচালক শামিম রেজা জানান, সোনাহাট পিসি গার্ডার সেতুর সয়েল কন্ডিশন সমস্যা, ডিজাইন রিভিউ না থাকা ও সেতুর উভয় পাশে জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন না হওয়ায় সংযোগ সড়কসহ সেতু নির্মাণ কাজ ১৭ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে। আমরা অর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি।

কুড়িগ্রাম সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম, আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই সমস্যাগুলো সমাধান হওয়ার আশ্বাস প্রদান করেন।

সূত্র:যুগান্তর, ১৬ এপ্রিল ২০২১

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।