শিরোনাম

সম্ভাব্যতা যাচাই ছাড়াই রেলের চার প্রকল্প


।। ইসমাইল আলী ।।  
সম্ভাব্যতা যাচাই ছাড়া ২৫ কোটি টাকার বেশি ব্যয়ের উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা যাবে না সরকারের পক্ষ থেকে এ ধরনের নির্দেশনা জারি করা হয়েছে ২০১৬ সালে। এরপরও তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে স্বাধীনভাবে সম্ভাব্যতা যাচাই ছাড়াই চারটি প্রকল্প চূড়ান্ত করেছে রেলওয়ে। প্রণয়ন করা হয়েছে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনাও (ডিপিপি)। তবে এ প্রস্তাবে আপত্তি তুলেছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। ফেরত দেয়া হয়েছে প্রকল্প চারটির ডিপিপি।

প্রকল্পগুলো হলো বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের মেয়াদোত্তীর্ণ সেতুসমূহের মানোন্নয়ন, বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের মেয়াদোত্তীর্ণ সেতুসমূহের মানোন্নয়ন, পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলওয়ে সদর দপ্তর কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ ও বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের রেলপথ পুনর্বাসন। তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে প্রকল্প চারটির সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে নির্দেশনা দিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। গত ৭ মার্চ রেলওয়েকে পাঠানো চিঠিতে এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা দেয়া হয়।

চিঠিতে বলা হয়, সম্ভাব্যতা যাচাই ছাড়াই প্রকল্প গ্রহণ ও অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াকরণ পরিকল্পনা-সংক্রান্ত সরকারি নির্দেশনার পরিপন্থী। কিছু কিছু বিনিয়োগ প্রকল্পের ক্ষেত্রে প্রকল্প বাস্তবায়নকালে সম্ভাব্যতা বিশেষ করে কারিগরি সম্ভাব্যতা সমীক্ষা করা হয়। এর ফলে প্রায়ই লক্ষ করা যায় যে, প্রকল্পের মূল কার্যক্রম শুরুর আগেই কাজের পরিধি, বাস্তবায়নকাল ও ব্যয় বৃদ্ধির জন্য প্রকল্প সংশোধনের প্রয়োজন হয়।

এতে আরও বলা হয়, ‘সরকারি খাতে উন্নয়ন প্রকল্প প্রণয়ন, প্রক্রিয়াকরণ, অনুমোদন ও সংশোধন পদ্ধতি (অক্টোবর, ২০১৬) সংক্রান্ত পরিপত্রের ৪.১-এ ২৫ কোটি টাকা ঊর্ধ্ব ব্যয় সংবলিত বিনিয়োগ প্রকল্প গ্রহণের পূর্বে সম্ভাব্যতা যাচাই আবশ্যিক করা হয়েছে। এনইসি-একনেক অনুবিভাগ হতে সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদনের জন্য একটি ফরম্যাট নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। সম্ভাব্যতা সমীক্ষার পর বিনিয়োগ প্রকল্প গ্রহণের বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একনেক সভায় বিভিন্ন সময়ে নির্দেশনা প্রদান করেছেন এবং সম্প্রতি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও সচিব কমিটির সভায় এ বিষয়ে গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।’

চিঠির ভাষ্যমতে, ২০০৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ রেলওয়েতে ৮৯টি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে, যার মধ্যে ১২টি সমীক্ষা প্রকল্প। এসব প্রকল্পের আওতায় এখনও বিনিয়োগ প্রকল্প গ্রহণ করা বাকি রয়েছে। সমীক্ষা করার পর কয়েক বছর অতিক্রান্ত হলে ওই সমীক্ষার তথ্যবলি প্রকল্প গ্রহণের উপযুক্ত নাও হতে পারে। ফলে সমীক্ষাগুলোর জন্য ব্যয়িত অর্থ সরকারি অর্থের অপচয় বলে গণ্য হবে।

এদিকে বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের মেয়াদোত্তীর্ণ সেতুসমূহের মানোন্নয়ন, বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের মেয়াদোত্তীর্ণ সেতুসমূহের মানোন্নয়ন, পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলওয়ে সদর দপ্তর কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ ও বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের রেলপথ পুনর্বাসন এ চার প্রকল্প সম্ভাব্যতা যাচাই ছাড়াই প্রস্তাব করা হয়েছে, যা প্রকল্প প্রক্রিয়াকরণ-সংক্রান্ত নির্দেশনার পরিপন্থী। এ কারণে বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের মেয়াদোত্তীর্ণ সেতুসমূহের মানোন্নয়ন ও পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলওয়ে সদর দপ্তর কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ প্রকল্প দুটির যাচাই সভার জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হলেও পরবর্তীকালে সম্ভাব্যতা যাচাই করে প্রকল্প প্রস্তাব প্রেরণের জন্য রেলওয়েকে নির্দেশনা দিয়েছেন রেলপথ সচিব।

চিঠিতে বলা হয়, ‘বর্ণিত অবস্থায় সম্ভাব্যতা যাচাই ব্যতীত রেলপথ মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা শাখায় পাঠানো উপরি-উল্লিখিত চারটি প্রকল্পের ডিপিপি নির্দেশক্রমে ফেরত পাঠানো হয় এবং এক্ষেত্রে নিম্ন লিখিথ বিষয়সমূহ পরিপালনের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।’ নির্দেশনাগুগলো হলো তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের পর বিনিয়োগ প্রকল্প ও ডিপিপি প্রণয়ন, পরিকল্পনা বিভাগ কর্তৃক প্রণীত ফরম্যাট অনুযায়ী সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন প্রণয়ন এবং সমাপ্ত বা চলমান সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের আলোকে অগ্রাধিকার অনুযায়ী প্রকল্প গ্রহণ করা।

এ প্রসঙ্গে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে শেয়ার বিজকে বলেন, রেলওয়ে অপ্রয়োজনীয় বা কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের নামে অর্থ অপচয় করে। এমনই দুটি প্রকল্প হলো ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে হাইস্পিড ট্রেন চালু করতে সম্ভাব্যতা যাচাই ও ঢাকার চারপাশে বৃত্তাকার রেলপথ চালু করতে সম্ভাব্যতা যাচাই। এজন্য প্রায় ২০০ কোটি টাকা অপচয় করা হয়েছে। অথচ গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই ছাড়াই ডিপিপি প্রণয়ন করা হয়েছে। তাই প্রকল্প চারটি ফেরত পাঠানো হয়েছে।

জানতে চাইলে রেলওয়ের মহাপরিচালক ডিএন মজুমদার বলেন, রেলওয়ে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় প্রকল্পগুলোর সম্ভাব্যতা যাচাই করেছিল। তবে তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সূত্রঃ শেয়ার বিজ


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।