অ্যাটেনডেন্ট সংকটে বিঘ্নিত যাত্রীসেবা

অ্যাটেনডেন্ট সংকটে বিঘ্নিত যাত্রীসেবা

আহমেদ কুতুব:
ট্রেনে ভ্রমণকারী যাত্রীদের সরাসরি বিভিন্ন সেবা দিয়ে থাকেন অ্যাটেনডেন্টরা; কিন্তু বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলে চাহিদার তুলনায় অ্যাটেনডেন্টের সংখ্যা খুবই কম। পূর্বাঞ্চলে চলাচলরত মোট ৪৬টি আন্তঃনগর ট্রেনের জন্য প্রায় ১২শ’ অ্যাটেনডেন্ট প্রয়োজন। তবে পদ আছে মাত্র ২১৫টি। তার মধ্যেও ১০৫টি পদ খালি। এ অবস্থায় অনেক ট্রেনে কোনো অ্যাটেনডেন্টই থাকছেন না, আবার কোনোটাতে দু-একজন থাকলেও তাদের দেখাই পাওয়া যায় না। অ্যাটেনডেন্ট সংকটে যাত্রীরা চাহিদা অনুযায়ী সেবা পাচ্ছেন না, পড়ছেন বিভিন্ন ভোগান্তিতে।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, বর্তমানে রেলওয়ের উন্নয়নে সরকারের প্রায় ৩ লাখ কোটি টাকার প্রকল্প চলমান রয়েছে। ইতিমধ্যে রেলওয়ে বহরে নতুন নতুন কোচ ও ইঞ্জিন যুক্ত হচ্ছে। বিভিন্ন রুটে বাড়ানো হচ্ছে নতুন ট্রেন। এতে রেলওয়ের যাত্রী পরিবহন সক্ষমতা বেড়েছে। তবে অ্যাটেনডেন্টের অভাবে যাত্রীদের কাঙ্ক্ষিত সেবা দেওয়া যাচ্ছে না। বিভিন্ন রুটের ট্রেনে হকার, ভিক্ষুক ও হিজড়াদের উৎপাতসহ নানা ঝামেলায় পড়তে হয় যাত্রীদের। অ্যাটেনডেন্ট না থাকায় এসব ঝামেলা যাত্রীদের নিজেদেরই সমাধান করতে হয় নইলে ভোগান্তি পোহাতে হয়। একই কারণে থামানো যাচ্ছে না বিনা টিকিটে যাত্রী পরিবহনও।

জানা যায়, প্রায় ১০ বছর আগে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের বিভিন্ন ট্রেনের যাত্রীদের সেবা নিশ্চিত করতে ২১৫টি অ্যাটেনডেন্টের পদ সৃষ্টি করা হয়। এর মধ্যে নিয়োগ দেওয়া হয় ১১০টি পদে। এখনো খালি রয়েছে ১০৫টি পদ। এমনকি শুধু ঢাকা থেকে বিভিন্ন রুটের ট্রেনের যাত্রীদের সেবার জন্য ১২০টি পদ সৃষ্টি করা হয়। এর মধ্যে ৩০টি পদ খালি রয়েছে।

টি এক্স আর ঢাকার কর্মকর্তারা জানান, রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলে মোট ৪৬টি আন্তঃনগর ট্রেন নিয়মিত চলাচল করে। এসব ট্রেনে যাত্রীদের সেবা নিশ্চিত করতে ১২শ’র মতো অ্যাটেনডেন্ট দরকার; কিন্তু পূর্বাঞ্চলে মোট অ্যাটেনডেন্টের পদই আছে ২১৫টি। এর মধ্যে শুধু ঢাকা থেকে চলাচলকারী ট্রেনের জন্য পদ রয়েছে ১২০টি। তার মধ্যে ৯০ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এখনো ৩০টি পদ শূন্য রয়েছে। এ ছাড়া পূর্বাঞ্চলের অন্য ৯৫টি পদের মধ্যে মাত্র ২০ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ পূর্বাঞ্চলের মোট ২১৫টি পদের মধ্যে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে মাত্র ১১০টি পদে। বাকি রয়েছে ১০৫টি পদ।

টিএক্সআর চট্টগ্রামের কর্মকর্তারা জানান, ট্রেনের প্রতিটি বগির জন্য একজন করে অ্যাটেনডেন্ট দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। তবে জনবল সংকটের কারণে সব ট্রেনে অ্যাটেনডেন্ট দেওয়া যাচ্ছে না। মহানগর এক্সপ্রেস, উদয়ন, পাহাড়িকা, উপকূল,

যমুনাসহ বেশ কয়েকটি ট্রেনে অ্যাটেনডেন্ট নেই বললেই চলে। এসব ট্রেনে যাত্রীরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সমস্যায় পড়লেও কিছু করার থাকছে না। কিছু কিছু ট্রেনে বেসরকারি অ্যাটেনডেন্ট নিয়োগ দেওয়া হলেও তারা পর্যাপ্ত সেবা দিতে পারছেন না।

রেলওয়ে ঢাকার হেড টিএক্সআর মনিরুজ্জামান মণ্ডল জানান, প্রায় ১০ বছর আগে রেলের যাত্রীদের সেবা দেওয়ার জন্য ঢাকায় ১২০টি অ্যাটেনডেন্ট পদ সৃষ্টি করা হয়। কিন্তু এখন ৯০ জন অ্যাটেনডেন্ট দিয়েই যাত্রীসেবা দিতে হচ্ছে। শূন্যপদ পূরণের পাশাপাশি যাত্রীসেবার মান উন্নয়নে অ্যাটেনডেন্টের পদসংখ্যা বাড়ানো জরুরি হয়ে পড়েছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) সৈয়দ ফারুক আহমেদ বলেন, রেলের যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে অ্যাটেনডেন্টের শূন্যপদ পূরণের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। বিষয়টি সম্পর্কে ঊধ্বর্তন কর্তৃপক্ষও অবগত রয়েছে।

সুত্র:সমকাল,১৪ মে ২০১৯

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।