সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাবে ধুকছে কমলাপুর-নারায়ণগঞ্জের ডুয়েলগেজ রেল লাইনের কাজ


।। নিউজ ডেস্ক ।।
রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশনের দূরত্ব ২১ কিলোমিটার। এই পথে যাত্রীদের নিরাপদ ও আরামদায়ক যাতায়াত নিশ্চিত করতে সাত বছর আগে বিদ্যমান মিটারগেজের সমান্তরাল একটি ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণকাজ শুরু হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত রেললাইনের অবকাঠামোগত স্থাপনের কাজ শেষ হয়নি। নানা অজুহাতে দফায় দফায় বাড়ছে প্রকল্পের মেয়াদ।

তবে বাংলাদেশ রেলওয়ে বলছে, এ ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের গোড়ায় ছিল গলদ। প্রকল্পটি নেওয়ার সময় সঠিকভাবে সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়নি। ফলে মিটারগেজ ও ডুয়েলগেজ রেললাইনের মধ্যে অসমতাসহ নানা সমস্যা হয়। পরে বিদ্যমান মিটারগেজ রেললাইনটি ডুয়েলগেজে রূপান্তর করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর এ প্রকল্পের বর্ধিত সময়ের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা। বিদ্যমান রেললাইনটি ১৮৮৫ সালে স্থাপন করা হয়েছিল।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ২০১৫ সালের ২০ জানুয়ারি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ‘ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সেকশনে বিদ্যমান মিটারগেজ রেললাইনের সমান্তরাল একটি ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণ’ নামে এ প্রকল্পটির অনুমোদন দেয় সরকার। তখন প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩৭৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১২৯ কোটি টাকা দিয়েছে সরকার। বাকি ২৪৯ কোটি টাকা জাপান সরকার দিয়েছে অনুদান হিসেবে। তখন প্রকল্পটি ২০১৭ সালের জুনে শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বিদ্যমান রেলস্টেশনের প্ল্যাটফর্ম ও প্ল্যাটফর্মের শেডের উচ্চতা, সেতু, লেভেলক্রসিং নিয়ে সবচেয়ে বেশি জটিলতার সৃষ্টি হয়। এছাড়া ডুয়েলগেজ ও মিটারগেজ রেললাইনের মধ্যে তিন ফুট উঁচু-নিচু হয়ে যায়।

এমন পরিস্থিতিতে প্রকল্পটি সংশোধন করে দুটি ডুয়েলগেজ রেললাইন স্থাপনের উদ্যোগ নেয় বাংলাদেশ রেলওয়ে। তখন সংশোধিত প্রকল্পের ব্যয় দাঁড়ায় ৭৮২ কোটি ৪১ লাখ টাকা। যা মূল প্রকল্প ব্যয়ের ৪০৩ কোটি ৬৮ লাখ টাকা বেশি। কিন্তু টাকা দিতে রাজি হয়নি জাপান। পরে ব্যয় বৃদ্ধির পুরো টাকা সরকারের তহবিল থেকেই দিতে হচ্ছে। এখন নারায়ণগঞ্জ থেকে গেন্ডারিয়া পর্যন্ত প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে, যা মূল প্রকল্পের ৭৭ শতাংশ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেলওয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, প্রকল্পটি নেওয়ার আগেই আলাদা দুটি ডুয়েলগেজ রেললাইন স্থাপনের বিষয়ে আলোচনা হয়েছিল। কিন্তু রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কয়েকজন কর্মকর্তার গাফিলতির কারণে এই ভুল হয়েছে। এখন সংশোধিত প্রকল্পের পুরো টাকা সরকারকে গচ্ছা দিতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জে মিটারগেজের পাশে যখন ডুয়েলগেজ নির্মাণ করা হচ্ছিল, তখন দেখা গেলো একটি লাইন থেকে আরেকটি লাইন তিন ফুট উঁচু। এতে রেলক্রসিংয়ে যানবাহন যাতায়াতে সমস্যার সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে নারায়ণগঞ্জ পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ, পরিবহন মালিক-শ্রমিক, সিটি করপোরেশন আপত্তি জানায়। পরে পর্যালোচনা করে দেখা যায় পুরো প্রকল্পটিই ভুলে ভরা।

কমলাপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ যেতে গেন্ডারিয়া, শ্যামপুরের বড়ইতোলা, পাগলা, ফতুল্লা রেলস্টেশনে ট্রেন থামে। এখন এই স্টেশনগুলোর অবকাঠামো উন্নয়নে কাজ চলছে।

বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) সকালে বড়ইতলা রেলস্টেশনে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, স্টেশনের দুই পাশে নতুন প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা হয়েছে। এর মধ্যে দক্ষিণ পাশের প্ল্যাটফর্ম থেকে উত্তর পাশের প্ল্যাটফর্ম তিন ফুট উঁচু। এখন দক্ষিণ পাশের প্ল্যাটফর্ম দিয়েই একমুখী ট্রেন চলে। এখনো ডুয়েলগেজ রেললাইন বসানো হয়নি। এ স্টেশনে আরও কিছু অবকাঠামো নির্মাণকাজও বাকি। কিন্তু কোনো নির্মাণ শ্রমিককে দেখা যায়নি।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সেকশনে ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ‘পাওয়ার চায়না’। বড়ইতলা রেলস্টেশনে চায়না প্রতিষ্ঠানটির কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে এই স্টেশনের তত্ত্বাবধায়ক শামসুজ্জামান জাগো নিউজকে জানান, চায়না ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের পক্ষে তিনি এ স্টেশনের নির্মাণকাজের তত্ত্বাবধান করেন। মাসখানেক ধরে নির্মাণকাজ বন্ধ। কিন্তু কী কারণে বন্ধ তা জানেন না। তবে অন্য রেলস্টেশনে নির্মাণকাজ চলছে।

এই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের আরেক কর্মকর্তা বলেন, কমলাপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ ২১ কিলোমিটারের এই রেললাইনের দুপাশে কয়েক হাজার অবৈধ স্থাপনা ছিল। প্রকল্পের কাজ শুরুর আগে এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে হয়েছে। এতে কিছুটা বেশি সময় নষ্ট হয়েছে। তবে এখন দ্রুতগতিতে রেললাইন স্থাপনের কাজ চলমান।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের পরিচালক মো. সেলিম রউফ জাগো নিউজকে বলেন, নানা জটিলতা কাটিয়ে প্রকল্পের কাজ এগিয়ে যাচ্ছে। আশা করি নির্ধারিত সময়ে (৩১ ডিসেম্বর ২০২২) প্রকল্পের কাজ শেষ করতে পারবো। তখন স্বাচ্ছন্দ্যে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে যাতায়াত করতে পারবেন যাত্রীরা।

সূত্রঃ জাগোনিউজ২৪


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।