রেলের ওপর চাপ কমেছে

রেলের ওপর চাপ কমেছে

একরামুল হক:
ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কের দুটি সেতু খুলে দেওয়ায় সড়কপথেই এখন চার থেকে পাঁচ ঘণ্টায় বন্দর নগর চট্টগ্রাম থেকে রাজধানী ঢাকায় পৌঁছে যাচ্ছে যাত্রীবাহী বাস। এ কারণে চট্টগ্রাম রেলস্টেশনে যাত্রীদের চাপ অপ্রত্যাশিতভাবে কমে গেছে। স্বজনদের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে বেশির ভাগ ঘরমুখী মানুষ সড়কপথে ভ্রমণ করছেন।

গতকাল রোববার চট্টগ্রাম রেলস্টেশন ঘুরে দেখা গেছে, ঘরমুখী যাত্রীদের চাপ তেমন ছিল না। প্রতিটি আন্তনগর ট্রেনে আসনের বাইরে দাঁড়িয়ে যাওয়া যাত্রীর সংখ্যা কম দেখা গেছে।

যাত্রীদের চাপ কমে যাওয়ার কারণ খুঁজছিলেন রেলওয়ের কর্মীরা। তাঁরা খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছেন, সড়কপথে একটি যাত্রীবাহী বাস ট্রেনের চেয়ে কম সময়ে রাজধানী পৌঁছে যাচ্ছে। এ জন্য অনেকে বাসে চড়ে গন্তব্যে রওনা হচ্ছেন।
রেলের বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা মো. আনসার আলী প্রথম আলোকে বলেন, অন্য বছরের ঈদের তুলনায় এবার স্টেশনে যাত্রীর চাপ কমে গেছে। কারণ, অনেক যাত্রী ট্রেনের পরিবর্তে বাস চড়ে গন্তব্যে যাচ্ছেন। চার থেকে পাঁচ ঘণ্টার মধ্যেই বাস চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় পৌঁছে যাচ্ছে। এর কিছুটা প্রভাব পড়েছে ট্রেনের ওপর।

আনসার আলী আরও বলেন, ‘সোমবার (আজ) স্টেশনে যাত্রীর চাপ বাড়তে পারে। আমরা সেভাবে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২৫ মে খুলে দেওয়া হয় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মেঘনা ও গোমতী নদীর ওপর নির্মিত দ্বিতীয় মেঘনা ও দ্বিতীয় গোমতী সেতু। দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতুটিও খুলে দেওয়া হয়। তিনটি সেতুর দূরত্ব ৩০ কিলোমিটার। অথচ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থেকে কুমিল্লার দাউদকান্দির গৌরীপুর ৩০ কিলোমিটার দূরত্বের এই পথে তীব্র যানজটের কারণে কতক্ষণে পাড়ি দিতে পারবেন, তা নিয়ে চিন্তায় থাকতেন যাত্রীরা। এসবই এখন অতীত। কারণ, এই পথ এখন পাড়ি দেওয়া যাচ্ছে মাত্র ৩০ মিনিটে!

সুত্র:প্রথম আলো, ০৩ জুন ২০১৯,


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।