শিরোনাম

যাত্রীকে আটকে পুলিশের চাঁদাবাজি, মালামাল লুট


।। নিউজ ডেস্ক ।।
যশোর রেলওয়ে স্টেশনে রেলওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে ভারতফেরত যাত্রীকে আটকে রেখে হয়রানি, মালামাল লুট ও চাঁদাবাজির অভিযোগের ‘প্রাথমিক সত্যতা’ মিলেছে। বুধবার (৮ জুন) অভিযোগ তদন্তে এসে রেলওয়ে পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার মজনুর রহমান ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

খুলনা রেলওয়ে জেলার কুষ্টিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মজনুর রহমান অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের বলেন, তিনি পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখছেন। বিস্তারিত প্রতিবেদন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রদান করবেন। এরপর পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

টিএম রাশিদুল হাসান অভিযোগে জানান, গত ৫ জুন তিনি ভারত থেকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে দেশে প্রবেশ করেন। এরপর বাসযোগে রাত ৮টার দিকে যশোর স্টেশনে আসেন সুন্দরবন এক্সপ্রেসে করে বাড়ি (সিরাজগঞ্জ) যাওয়ার জন্য। স্টেশনে অবস্থানকালে রেলওয়ে পুলিশ (জিআরপি) কনস্টেবল আবু বক্কার ও আতিকুর রহমানসহ সাদা পোশাকধারী আরও ৩ জন তার ব্যাগ তল্লাশির নামে ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে ভারত থেকে আনা পোশাক, প্রসাধনীসহ প্রায় ১৫ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে নেয়। পরে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিকাশের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা নিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষর রেখে ছেড়ে দেয়। রাত দেড়টার দিকে তাকে ছেড়ে দেয়ার পর বাধ্য হয়ে প্রাইভেটকার ভাড়া করে রাশিদুল বাড়িতে ফেরেন।

রাশিদুল জানান, রেলওয়ে পুলিশের এই মালামাল লুট, চাঁদাবাজির বিষয়টি তিনি ৯৯৯ এ ফোন করে পরে রেলওয়ে পুলিশের হেডকোয়ার্টারে এসপি (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন) বরাবর অভিযোগ করেছেন।

রাশিদুল জানিয়েছেন, ওই রাতে তিনি যে বিকাশ নম্বরে টাকা দিয়েছেন তার স্ক্রিনশট, গোপনে পুলিশ কনস্টেবলদের তোলা ছবি ও ভিডিও অভিযোগের সঙ্গে সংযুক্ত করেছেন। পাশাপাশি ঘটনার সময় স্টেশনের সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করলেও তার অভিযোগের সত্যতা মিলবে বলে দাবি করেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবল আবু বক্কার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ওই রাতে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। তারা কোনো যাত্রীকে তল্লাশি করেননি।

সূত্রঃ যুগান্তর


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।