হিলি রেলপথ বন্ধে আলটিমেটাম

হিলি রেলপথ বন্ধে আলটিমেটাম

হিলি রেলস্টেশনে আন্তনগরসহ সব ট্রেনের পূর্ণাঙ্গ যাত্রাবিরতি এবং স্টেশনটি আধুনিকায়নের দাবি উঠেছে। দাবিগুলো পূরণে সময়সীমা বেঁধে (আলটিমেটাম) দিলেন দিনাজপুরের হাকিমপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান। দাবি পূরণ না হলে দেশের অন্যতম স্থলবন্দর-সংলগ্ন হিলি রেলপথ বন্ধেরও হুমকি দিয়েছেন তিনি।

আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টায় হিলি রেলস্টেশনের সামনে সংবাদ সম্মেলনে এ সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়।
হাকিমপুর উপজেলার মধ্যে পড়েছে হিলি স্থলবন্দরটি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন হাকিমপুর পৌরসভার মেয়র জামিল হোসেন। তিনি বলেন, হিলি বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর। সরকার এখান থেকে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব পায়। এ স্থলবন্দর দিয়ে ভারত এবং বাংলাদেশে যাতায়াতের জন্য প্রতিদিন দেশি-বিদেশি বহুযাত্রী হিলিতে আসেন। নিরাপদ বাহন হিসেবে এবং আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে সুলভে পণ্য পরিবহনে রেলের কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু কেন হঠাৎ করেই হিলি রেলস্টেশনের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

মেয়র জামিল হোসেন জানান, পৌরসভার পক্ষ থেকে তিনি স্টেশনটি আধুনিকায়নের জন্য এবং সব ধরনের আন্তনগর ট্রেনের যাত্রাবিরতির জন্য পৌরসভার পক্ষ থেকে ২০১৬ সালের ১৭ নভেম্বর রেলমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছিলেন। এরপর ওই বছর ২১ নভেম্বর স্থানীয় সংসদ সদস্য শিবলী সাদিকও রেলমন্ত্রীর কাছে আধা সরকারি পত্র (ডিও) দেন। গত বছর ৯ নভেম্বর হাকিমপুরবাসীর পক্ষে মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আলম মণ্ডল প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত আবেদন করেন।

মেয়র জানান, যেখানে রেলস্টেশনটি আধুনিকায়ন এবং সব আন্তনগর ট্রেনের যাত্রাবিরতির জন্য হিলিবাসী আবেদন-নিবেদন করছে, সেখানে কোনো ঘোষণা না দিয়েই ৭ জানুয়ারি থেকে রেলস্টেশনটির কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ১৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে স্থানীয় সংসদ সদস্য এ বিষয়ে রেলমন্ত্রীর কাছে বিষয়টি তুলে ধরেন। এরপরও রেল কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।

সংবাদ সম্মেলনে সব আন্তনগর ট্রেনের যাত্রাবিরতি এবং রেলস্টেশনের আধুনিকায়নের দাবিতে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি রেলস্টেশনে মানববন্ধনের ঘোষণা দেওয়া হয়। এরপরও দাবি না মানা হলে আগামী ১ মার্চ থেকে হিলির রেলপথ বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।
এ বিষয়ে মুঠোফোনে মঙ্গলবার দুপুরে রেলের বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (পাকশী বিভাগ) শওকত জামিল মোহসী প্রথম আলোকে জানান, জনবল না থাকায় কার্যক্রম চালু করা সম্ভব নয়। তবে আগে যে তিনটি ট্রেনের যাত্রাবিরতি ছিল, জনবল না থাকায় সেগুলো প্ল্যাটফর্মে না দাঁড়িয়ে দ্বিতীয় লাইনে যাত্রাবিরতি করছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমদাদুল হক চৌধুরী, উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি পারুল বেগম, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম, উপজেলা নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক সামছুল হুদা খান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলীসহ সব সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠন এবং শ্রেণি-পেশার শতাধিক নেতা ও পৌরবাসী উপস্থিত ছিলেন।

হিলি রেলস্টেশন নিয়ে ২০১৫ সালের ১০ জুলাই প্রথম আলোয় ‘মাস্টার ছাড়াই চলছে হিলি রেলস্টেশন’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সুত্র:প্রথম আলো, ৩০ জানুয়ারি ২০১৮

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।