শিরোনাম

রেলওয়ের কাছ থেকে আরও সুখবর কাম্য

রেলওয়ের কাছ থেকে আরও সুখবর কাম্য

নিউজ ডেস্ক:
গতকালের শেয়ার বিজে প্রকাশিত ‘সাত বছরে রেলের ইঞ্জিন ফেইলিওর কমেছে ৫৫%’ প্রতিবেদনটি আশাব্যঞ্জক। এতে বলা হয়েছে, ২০১১ সালে রেলের ইঞ্জিন ফেইলিওর ৪২৪টি থাকলেও ২০১৭ সালে তা ১৮৯টিতে দাঁড়িয়েছে। ২০১১ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত সাত বছরে রেলের ইঞ্জিন ফেইলিওর কমেছে ২৩৫টি বা ৫৫ দশমিক ৪২ শতাংশ। স্বাধীনতার পর থেকে দীর্ঘদিন অবহেলিত রেলওয়ের জন্য এটা দারুণ খবরই বটে। এতে রেলের ওপর সাধারণ মানুষের আস্থা যেমন বাড়বে, দেশের উন্নয়নেও বিষয়টি ভালো ভূমিকা রাখবে। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে এটা সম্ভব হয়েছে, এতে সন্দেহ নেই।

রেলওয়ের জন্য পৃথক মন্ত্রণালয় গঠনের পাশাপাশি বাজেট বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে ১৪০টি ইঞ্জিন কেনার প্রক্রিয়া চলমান। এছাড়া বর্তমান সরকার দায়িত্ব নেওয়ার পর রেলের বহরে ২৭০টি যাত্রীবাহী কোচ যোগ হয়েছে। আরও ২৫০টি কেনার প্রক্রিয়া চলছে। তবে রেলওয়েতে এখনও বেশ কিছু সীমাবদ্ধতা রয়ে গেছে। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর রেলওয়ের সেবার পরিধি বেড়ে উঠলেও এখনও তা লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়নি। যাত্রী ও ট্রেনের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও প্রতি বছর মোটা অঙ্কের লোকসান গুনতে হচ্ছে। যাত্রীসেবার মান নিয়েও প্রশ্ন রয়ে গেছে। সহজে টিকিট না পাওয়া, কালোবাজারি, রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুর্নীতি, যাত্রাপথে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপসহ নানা সমস্যা রয়ে গেছে। এগুলো রেলের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ডে অন্তরায় বৈকি। রেলওয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।

গুরুত্বপূর্ণ অনেক পদে নিয়োগ আটকে আছে দীর্ঘদিন। আবার অনেক ক্ষেত্রে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি জনবল রয়েছে বলে জানা যায়। এটা রেলের পরিচালন ব্যয় আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে। এ বিষয়গুলোর দ্রুত সমাধান প্রয়োজন। রেলওয়ের মাধ্যমে পণ্য পরিবহনের পরিমাণ সড়কপথের তুলনায় এখনও অনেক কম। এটি অব্যবহৃত সম্ভাবনা যদিও বিশ্বের অনেক দেশে পণ্য পরিবহন করে মুনাফা করছে রেল বিভাগ।

সারা বিশ্বেই ট্রেন নিরাপদ ভ্রমণের মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। সড়কপথে তীব্র ভোগান্তির কারণে মানুষ এখন ট্রেনে ভ্রমণ করছে বেশি, ভাড়াও তুলনামূলক কম। ফলে মানুষ এ মাধ্যমে ভ্রমণে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। বাস্তবায়নাধীন পদ্মা সেতু প্রকল্পেও রেল সংযোগের ব্যবস্থা রয়েছে। এটা মোংলা বন্দরের সঙ্গে সরাসরি সংযোগের পাশাপাশি দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থায় যুগান্তকারী পরিবর্তন আনবে বলেই আমরা মনে করি। এতে এক সময়ের সমৃদ্ধ শিল্পনগরী খুলনা হয়তো আবার স্বরূপে ফিরে আসবে।

বাংলাদেশের বাস্তবতায় যোগাযোগের ক্ষেত্রে রেলওয়ে অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। এ খাতের উন্নয়নে যে পদক্ষেপগুলো নেওয়া হয়েছে, তার বাস্তবায়ন হলে রেলওয়ের সেবার মান আরও বৃদ্ধি পাবে। পাশাপাশি নিয়োগ জটিলতা নিরসন, দুর্নীতি দূরীকরণ, নিরাপত্তা জোরদারসহ রেলওয়েতে আধুনিক প্রযুক্তির সদ্ব্যবহার জরুরি।

সুত্র: শেয়ার বিজ


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।