ঢাকাগামী ট্রেনযাত্রী কয়েকগুণ , ৭ দিন আগেও টিকেট মেলে না

ঢাকাগামী ট্রেনযাত্রী কয়েকগুণ , ৭ দিন আগেও টিকেট মেলে না

নিউজ ডেস্ক:

বগুড়া-ঢাকা পথে যাত্রী সংখ্যা কয়েকগুণ বেড়েছে। রেলগাড়িতে বগুড়া-ঢাকা রুটে আন্তঃনগর (আইসি) ট্রেনগুলোতে আসন সংখ্যা বাড়ানো হয়নি। দুইটি আইসি ট্রেনের আসন বরাদ্দ মাত্র ৭৩টি। একটিতে প্রথম শ্রেণীর আসন বরাদ্দ মাত্র ৩টি। আরেকটিতে প্রথম শ্রেণীর কোন আসন বরাদ্দ নেই। দুই আইসি ট্রেনের কোনটিতেই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত (এসি) আসন বগুড়ার জন্য বরাদ্দ নেই। তারপরও শোভন শ্রেণী ও প্রথম শ্রেণীর আসনের জন্য ভ্রমণের এক সপ্তাহ আগে টিকেট সংগ্রহ করতে হয়। স্টেশন কর্তৃপক্ষ জানালেন প্রতিদিন গড়ে আইসি ট্রেনের শতাধিক যাত্রী টিকেট সংগ্রহের জন্য এসে ফিরে যায়।

বগুড়া থেকে ঢাকা আন্তঃনগর দুইটি ট্রেন চলাচল করে। একটির উৎস লালমনিরহাট। এটি লালমনি এক্সপ্রেস নামে পরিচিত। এই ট্রেনে ঢাকাগামী বগুড়ার যাত্রীদের জন্য শোভন শ্রেণীর আসন বরাদ্দ মাত্র ৩৩টি। ট্রেনের বিশেষ একটি কামরায় কেবিনের মতো ছোট্ট খোপে স্বল্প সুবিধা দিয়ে প্রথম শ্রেণী বানানো হয়েছে। এই প্রথম শ্রেণীতে ঢাকাগামী বগুড়ার যাত্রীদের জন্য আসন বরাদ্দ মাত্র তিনটি। আরেকটি আন্তঃনগর ট্রেনের নাম রংপুর এক্সপ্রেস। এই আইসি ট্রেনের উৎস রংপুর। এই ট্রেনে ঢাকাগামী বগুড়ার যাত্রীদের শোভন শ্রেণীর আসন বরাদ্দ মাত্র ৪০টি। এই ট্রেনে বগুড়ার যাত্রীদের জন্য প্রথম শ্রেণীর কোন আসন বরাদ্দ নেই। দুই ট্রেনের কোনটিতেই বগুড়ার যাত্রীদের জন্য এসির টিকেট বরাদ্দ নেই।

ট্রেনে স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণের জন্য দিনে দিনে যাত্রী সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষ করে আন্তঃনগর ট্রেনে ঢাকাগামী যাত্রী প্রতিদিনই বেড়ে যাচ্ছে। যাত্রীদের কথা ট্রেনের আসন সংখ্যা বাড়ানো হলে অনেক যাত্রী ট্রেনে ঢাকা ভ্রমণ করবে। ট্রেনে এসি ও প্রথম শ্রেণীর আসন সংখ্যা বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন যাত্রীরা। এই বিষয়ে রেল স্টেশনের সুপার বেনজির আহমেদ বলেন, প্রতিদিন আন্তঃনগর ট্রেনের টিকেট সংগ্রহ করতে এসে গড়ে এক শ’ জন টিকেট না পেয়ে ফিরে যাচ্ছে। সাত দিন আগেও টিকেট দিয়ে কুলান যাচ্ছে না। এই অবস্থায় তিনি মনে করেন, আন্তঃনগর ট্রেনের আসন বরাদ্দ বাড়ানো ছাড়া টিকেটের এই চাপ মেটানো খুবই কঠিন।

সুত্র:জনকন্ঠ, ৪ জুলাই ২০১৮

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।