রংপুরে একটি দিবাকালীন আন্তঃনগর ট্রেন চালু এখন সময়ের দাবি

রংপুরে একটি দিবাকালীন আন্তঃনগর ট্রেন চালু এখন সময়ের দাবি

ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের যোগাযোগ ব্যবস্থা খুব উন্নত নয়। তবে আশান্বিত হবার মত খবর হচ্ছে এলেঙ্গা-হাটিকুমরুল রংপুর মহাসড়ক চারলেন করার প্রকল্পটি সম্প্রতি অনুমোদিত হয়েছে। স্থলপথের যোগাযোগ উন্নত হলে রংপুরবাসী উপকৃত হবে। এই অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়নের জন্য রেলপথের যোগাযোগ ব্যবস্থাকেও ঢেলে সাজানো উচিত। রংপুর বিভাগ উন্নয়ন আন্দোলন পরিষদ দীর্ঘ দিন থেকে তাঁদের বক্তব্যে একটি দিবাকালীন ট্রেন চালুর প্রস্তাব করে আসছে।

সাংগঠনিকভাবে এই সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট তাঁদের বক্তব্য গণতান্ত্রিকভাবে পৌঁছানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তুপরিতাপের বিষয় হল সরকার জনবান্ধব হলেও জনগণের কথা তুলে ধরবার মত জনপ্রতিনিধি আমাদের নেই। বক্তব্য তুলে ধরার জন্য দায়িত্ব পালন করছেন সামাজিক সংগঠকগণ। কিন্তু এর বাস্তবায়ন বিলম্বলিত হলে আমাদের দুর্দশাবাড়বে। পরিকল্পনাহীন নগরায়নের ফলে রংপুরে অপরিকল্পিত উন্নয়নের জনভোগান্তিবাড়ছে। নাগরিক দুর্ভোগ লাঘবে আন্তঃনগর ট্রেন চালুকরণ এখন সময়ের দাবি। রংপুর বিভাগের সকল জেলায় আন্তঃনগর ট্রেন সুবিধা চালু হলে যাত্রী সাধারণের ভ্রমন সুবিধা সহজতর হবে। পাশাপাশি সহজে মালামাল পরিবহনের সুবিধাজনক সুযোগ সৃষ্টি হবে। স্থানীয় ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসারে এই যোগাযোগগুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারবে। কিন্তু রংপুর অঞ্চলের মানুষের বহুদিনের দুঃখএখানকার জনগণ উন্নততর অন্তঃযোগাযোগ কিংবা আন্তঃযোগাযোগ ব্যবস্থার সুবিধা থেকে বঞ্চিত।

অপার সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও শুধুমাত্র নাজুক যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে এই অঞ্চল অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হতে পারেনি। দুর্বল যোগাযোগ অবকাঠামোর কারণে উদ্যোগক্তাগণ উৎসাহ হারিয়ে ফেলেন। এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নতি ত্বরান্বিত করতে হলে স্থলপথের পাশাপাশি রেল পথের যোগাযোগ উন্নত করতে হবে। গত বাজেটে রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ডইন্ডাস্ট্রি রংপুর বিভাগীয় শহর থেকে চট্রগ্রাম পর্যন্ত একটি আন্তঃনগর ট্রেনচালুর প্রস্তাব করেছে। তাঁদের যুক্তিমতে এর ফলে চট্রগ্রাম বন্দর থেকে রংপুরে কাঁচামাল পরিবহন খুব সহজ হবে। রংপুরে শিল্প গড়ে না ওঠার এটি অন্যতম কারণ।সড়ক পথে রংপুর থেকে চট্রগাম পর্যন্ত যাতায়াত করতে প্রায় বিশ ঘন্টা সময়লাগে এবং যাত্রী পরিবহনকারী বাসে কিংবা ট্রাকে শিল্পের জন্য মালামাল পরিবহনবেশ ঝামেলাপূর্ণ। একটি ট্রেন সমূহ ঝামেলা এড়াতে পারে। অল্প কিছু দিনের মধ্যেই দেশের বিভিন্ন সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হবে। রংপুর থেকে বহু শিক্ষার্থী ঢাকায় পরীক্ষা দিতে যাবে। আমি যখন ঢাকায়

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিতে গেছি তখন দেখেছি কি অবর্ণনীয় কষ্টকরে সেখানে পৌঁছাতে হয়। সেই কষ্টের ফাঁদে পড়তে যাচ্ছে আমার অনুজবৃন্দ ।তাঁদের কষ্টের কথা ভাবতে ভাবতেই চোখে পড়ে ঢাকাগামী শ্রমিকদের দৃশ্য। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তাঁরা বাসের ছাদে ঢাকায় যাচ্ছে। জীবিকার কাছে হার মানছেজীবন ঝুঁকি। রংপর থেকে সবচেয়ে বেশি পোশাক শ্রমিক ঢাকায় কাজ করে।তাঁদের শ্রমের ঘামে অর্থনীতির ভিত গড়ে ওঠে কিন্তু যানবাহনের চাকার মত তাঁদেরজীবন চাকা দ্রুতগামী হয় না। দ্রুততর কোন বাহনের বেপরোয়া গতি কেড়ে নেয় হৃদস্পন্দন।
আন্তঃনগর ট্রেনের দাবি এই অঞ্চলের আপামর জনসাধারণের।

এই দাবিতে রয়েছে সংগঠিত আন্দোলন। কুড়িগ্রামের রেল- নৌ যোগাযোগ ও পরিবেশ উন্নয়ন গণকমিটি সাংগঠনিকভাবে মানববন্ধন সহ বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে সরকারের সদয় দৃষ্টিকামনা করে। সংগঠনের একজন সংগঠক আলাপকালে তাঁদের পরিকল্পনা তুলে ধরে ।আমাকে জানান “ভাওয়াইয়া এক্সপ্রেস” নামে একটি আন্ত:নগর ট্রেন চালু হলে সেটিরংপুরের ঐতিহ্য ভাওয়াইয়া গানের মাধ্যমে বিভাগের ব্রান্ডিং করবে। রংপুর দারিদ্র্য পীড়িত অঞ্চল। অর্থনৈতিকভাবে আমাদের এগিয়ে যেতে হলে উন্নয়নের পূর্বশর্ত যোগাযোগ ব্যবস্থাকে উন্নত করতে হবে। রংপুর থেকেএকটি ট্রেন রাতে ঢাকায় যায় এবং দিনে ফিরে আসে। কিন্তু সময়ের অগ্রগতিতে সেটি চাহিদা পূরণে সক্ষম নয়।

সময়ের সঙ্গে আমাদের এগিয়েযেতে হলে সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে সময়কে ধারণ করতে হবে। উত্তরাঞ্চলের মানুষমঙ্গা নয়, উন্নয়ন প্রত্যাশা করে। তাঁরা পরিশ্রমী। সময়ের চাহিদাকে তাঁরা গুরুত্ব দিয়ে এগিয়ে যাবার জন্য লড়াই করে। রংপুরকে উন্নয়নের মডেল করতে হলে উন্নয়নসহায়ক বাহন এখন অতীব প্রয়োজনীয়। ২০১৬ সালে কুড়িগ্রামে অনুষ্ঠিত এক জনসভায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রেল নিয়ে আশাব্যঞ্জক কথা শুনিয়েছিলেন। কিন্তু এরপর কোন জনপ্রতিনিধি জনগণের সেই কথা বলেননি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেই কথাতেই আমাদের আস্থা। তাঁর নিকট আমাদের বিশেষ অনুরোধ সামাজিক সংগঠনগুলোর আবেদনে সাড়া দিয়ে দেশের উন্নয়নে আমাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরুন।

রংপুরের অমিত সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে এখানকার মানুষের ভাগ্য বদলেরসুযোগ দিন। রংপুর অঞ্চলকে বাদ দিয়ে দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়।নদী বিধৌত অঞ্চলে রেলকে ঘিরে অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভিত তৈরি হোক।

লেখক: শিক্ষার্থী, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর।

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।