বাজে টাইমিংয়ের কারণে জামালপুর এক্সপ্রেসে উঠছেন না যাত্রীরা

বাজে টাইমিংয়ের কারণে জামালপুর এক্সপ্রেসে উঠছেন না যাত্রীরা

অনেক অপেক্ষা আর আন্দোলনের পর নতুন ট্রেন পেয়েছে জামালপুরবাসী। টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব হয়ে চলাচলকারী ট্রেনটির নাম ‘জামালপুর এক্সপ্রেস’। ইন্দোনেশিয়া থেকে সদ্য আমদানিকৃত ১৩টি ব্র্যান্ড নিউ কোচ দিয়ে গত ২৬ জানুয়ারি ট্রেনটির উদ্বোধন করা হয়। কিন্তু এই স্বপ্নের ট্রেনটি এখন জামালপুরবাসীদের গলার কাঁটা। এর টাইমটেবিল এবং রানিং টাইমিং এতটাই বাজে যে, যাত্রীরা আগ্রহ হারিয়েছেন নতুন ট্রেনে। এই রুটে প্রচণ্ড যাত্রীচাপ থাকা সত্ত্বেও ট্রেনটি অনেকাংশেই ফাঁকা থাকে।

রেলের ওয়েবসাইট অনুযায়ী, বেলা সাড়ে ১০টায় জামালপুর এক্সপ্রেস কমলাপুর স্টেশন ছেড়ে এসে ৪.০৫ মিনিটে জামালপুর স্টেশনে পৌঁছায়। রানিং টাইম সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার বেশি। নামে আন্তঃনগর হলেও প্রায় প্রতিটি স্টেশনে থেমে যায় ক্রসিংয়ের জন্য। এই থামাথামির পর্ব অসহ্য হয়ে ওঠে ফিরতি যাত্রায়। সন্ধ্যা ৫.৪৫ মিনিটে জামালপুর থেকে ছেড়ে ট্রেনটির ঢাকায় পৌঁছার কথা রাত ১১.৩০ মিনিটে। কিন্তু বাস্তবে ট্রেনটি পৌঁছায় রাত ১টায়, কখনো বা ২টার সময়ও!

গত ৫ মার্চ সরেজমিনে ট্রেনটিতে ভ্রমণ করে দেখা গেছে, প্রতিটি স্টেশনে এটি কমপক্ষে ২০ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকছে অন্য ট্রেনকে সাইড দেওয়ার জন্য। এর মাঝে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব স্টেশনে ট্রেনটি বসেছিল পাক্কা ১ ঘণ্টা ২০ মিনিট! এরপর মির্জাপুরে ৩০ মিনিট, কালিয়াকৈর হাইটেক সিটি স্টেশনে ২০ মিনিট, মৌচাক স্টেশনে ২০ মিনিট, ধীরাশ্রমে ৩৫ মিনিট ক্রসিংয়ের জন্য দাঁড়িয়ে ছিল ট্রেনটি! অতঃপর বিমানবন্দর স্টেশনে যখন জামালপুর এক্সপ্রেস প্রবেশ করে, ঘড়িতে সময় তখন রাত ১টা বেজে ১৪ মিনিট!

রাত ১টা কিংবা ২টার সময় কোনো মানুষই ঢাকায় পা রাখতে চান না। রাজধানীতে রাত নামলেই ওৎ পেতে থাকে ছিনতাইকারীরা, ওৎ পেতে থাকে নানারকম বিপদ। গণপরিবহন তো নয়ই, যাতায়াতের জন্য পর্যাপ্ত গাড়ি পাওয়া যায় না। যে কারণে ধীরে ধীরে যাত্রী হারাচ্ছে ট্রেনটি। গত বৃহস্পতিবার জামালপুর এক্সপ্রেসের স্নিগ্ধা কোচ ‘গ’ এর অনেক যাত্রীরাই বলেন, এই ট্রেনে তারা আর উঠবেন না। নতুন ট্রেনে চড়ার আনন্দ কিংবা আরামের চেয়ে নিজের ও পরিবারের জানমালের নিরাপত্তা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

জামালপুর এক্সপ্রেসের ৫০ মিনিট পর জামালপুর থেকে ছেড়ে আসা অগ্নিবীণা এক্সপ্রেস রাত ১২টার মধ্যে ঢাকায় থাকে। যদিও যাত্রীদের কাছে জনপ্রিয় এই আন্তঃনগর ট্রেনটির সময়সূচিও পেছানো হয়েছে। জামালপুরের যাত্রীদের দাবি, জামালপুর এক্সপ্রেসকে ঢাকা থেকে রাত ১২টার দিকে জামালপুরের উদ্দেশ্যে রওনা করা হোক। আর ফিরতি যাত্রা হোক সকালে ব্রহ্মপুত্র এক্সপ্রেসের পর। তাহলে ট্রেনটিতে যাত্রীও যেমন হবে, তেমনি কমবে লোকসান। এটা সম্ভব না হলে ঢাকামুখী যাত্রার বর্তমান সময় আরও এগিয়ে আনার দাবি যাত্রীদের।

সুত্র:কালের কন্ঠ, ৭ মার্চ, ২০২০

About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।