শিরোনাম

সংস্কার হচ্ছে রেল আইন

সংস্কার হচ্ছে রেল আইন

তৌফিকুল ইসলাম :ব্রিটিশ আমলের আইনেই চলছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। ব্রিটিশ আমলের এই আইনে রেল দুর্ঘটনায় জন্য দায়ী চালক-গার্ডের সর্বোচ্চ শাস্তি বাধ্যতামূলক অবসর। কিন্তু ত্রুটিপূর্ণ এই আইনের কারণে অনেক ক্ষেত্রেই শাস্তি পাচ্ছেনা অভিযুক্তরা। তাই রেলের আইন সংস্কারের বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

রেল সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯০ সালে টঙ্গিতে দেশের সবচেয়ে ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনায় ৮৮ জন নিহত হন। তদন্ত শেষে রেল কর্তৃপক্ষ লোকোমাস্টারকে অভিযুক্ত করে চাকরি থেকে বাধ্যতামূলক অবসরে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও তা বাস্তবায়ন করতে পারেনি।

গত দুবছর আগে চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে রেল ধোয়ার (ওয়াশ) জন্য ওয়াশিং ইয়ার্ডে নেওয়ার সময় একটি যাত্রীবাহী রেলকে আঘাত করার কারণে মাসুদুর রহমান ও আব্দুল করিম তালুকদার নামে দুজনকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু ব্রিটিশ আমলের সেই পুরনো ত্রুটিপূর্ণ আইনের কারণে গত দুবছরেও তা কার্যকর করা সম্ভব হয়নি।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অভিযুক্তদের শাস্তি হিসেবে দুই থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট (বাৎসরিক বর্ধিত বেতন) বন্ধ রাখা হয়। আর লোকমোটিভ (ইঞ্জিন) ও লাইনের ত্রুটি দেখিয়ে সাময়িক বরখাস্তের মতো সামান্য শাস্তির মধ্য দিয়েই মাফ পেয়ে যাচ্ছেন রেল দুর্ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিরা।

এদিকে, সর্বশেষ গত বছরের সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা ঘটে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে। মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৬ জন নিহত ও শতাধিক আহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর লোকোমাস্টার ও সহকারী লোকোমাস্টার এবং গার্ডকে দায়ী করা হয়। রেলের আইন অনুযায়ী প্রথমে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এই দুর্ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছিলেন ব্রিটিশ আমলের যে আইনটি আছে তা সংস্কার করা হবে। তারই অংশ হিসেবে রেল আইনকে একটি যুগোপযোগী আধুনিকায়ন করার প্রক্রিয়া চলছে।

ব্রিটিশ আমলের রেলআইন সংস্কারের বিষয়ে জানতে চাইলে রেল মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মোফাজ্জল হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আইন সংশোধনের জন্য আমরা কাগজ-কলমে উদ্যোগ নেওয়া শুরু করেছি। একজন কনসালটেন্ট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এই বিষয়। সুতরাং রেললাইন সংস্কার কাজ চলমান রয়েছে।’

এব্যাপারে জানতে চাইলে পশ্চিমাঞ্চল রেলের চিফ ইঞ্জিনিয়ার (প্রকৌশল) আল ফাত্তাহ মো. মাসউদুর রহমান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ব্রিটিশ আমলের রেল আইন অবশ্যই সংস্কার হওয়ার প্রয়োজন। কারণ বিনা টিকিটে ট্রেন ভ্রমণ করলে যে পরিমাণ জরিমানা দিতে হয় যা খুবই কম। এছাড়াও আরো অনেক ধারা আছে যেগুলো ব্রিটিশরা যেরকম করে গেছে ঠিক একই রকম রয়ে গেছে। সুতরাং রেলআইন সংস্কারে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এটি বাস্তবায়ন হলে অবশ্যই ভালো হবে।’

যাত্রী অধিকার নিয়ে কাজ করা ‘যাত্রী কল্যাণ সমিতি’র মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরি বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘দুর্ঘটনা শুধুমাত্র যে চালকের ভুলে হয় তা কিন্তু নয় রেলের ক্ষেত্রে প্রকৌশল বিভাগের একটা দায় থাকে। তাই সময় এসেছে যুগোপযোগী এবং আধুনিক একটি রেল লাইন তৈরি করার। যাতে করে যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়। এবং যে দোষী সে যেন শাস্তি পায়। ব্রিটিশ আমলের আইন সংস্কার করা এখন সময়ের দাবি।’

সুত্র:বার্তা২৪.কম, ০৭ জানুয়ারি, ২০২০


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।