শিরোনাম

বগুড়া-সিরাজগঞ্জ রেলপথ নির্মাণ কাজ এ বছরই শুরু

বগুড়া-সিরাজগঞ্জ রেলপথ নির্মাণ কাজ এ বছরই শুরু

সমুদ্র হক :
উত্তরবঙ্গের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার দ্রুত যোগাযোগে বগুড়া-সিরাজগঞ্জ ডুয়েল গেজ রেললাইন নির্মাণ কাজ চলতি বছর শুরু হচ্ছে। রেলপথ বিভাগের উর্ধতন সূত্র জানায়, এই রেলপথে পূর্বের প্রস্তাবিত ৭২ কিলোমিটার রেললাইনের স্থলে বর্তমানে ৮৪ কিলোমিটার রেলপথ, একটি রেল জংশন ও পাঁচটি নতুন রেলস্টেশন নির্মাণ করা হবে। ব্যয়ের প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫ হাজার ৫শ’ কোটি টাকা। প্রকল্পটি এ বছর জুন মাসের মধ্যেই জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) অনুমোদনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এ জন্য রেলপথের নক্সা তৈরি, স্টেশনের সংখ্যা নির্ধারণসহ আনুষঙ্গিক সব কাজ শেষ হয়েছে। এগুলো ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট প্রোফাইলে (ডিপিপি) অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। একনেকে এই ডিপিপি উত্থাপিত হবে।

এই রেলপথ নির্মাণে বগুড়া সীমানায় ৫২ কিলোমিটার রেললাইনের জন্য ৫১০ একর ভূমি এবং সিরাজগঞ্জ সীমানায় ৩২ কিলোমিটার রেলপথের জন্য ৪শ’ একর ভূমি অধিগ্রহণের প্রস্তাব করা হয়েছে। মোট ৯৬০ একর ভূমির মূল্য নির্ধারণের কাজ চলছে। একনেক বৈঠকে প্রকল্প অনুমেদিত হওয়ার পরই জেলা প্রশাসকগণের কাছে রেললাইনের জন্য ভূমি অধিগ্রহণের নির্দেশ দেয়া হবে। প্রকল্পের আওতায় রেললাইন নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছে এভাবেÑ বগুড়া রেল স্টেশন থেকে আড়াই কিলোমিটার পশ্চিমে ছোট বেলাইল এলাকা থেকে সিরাজগঞ্জের এম মনসুর আলী রেল স্টেশন পর্যন্ত ৭২ কিলোমিটার। বগুড়ার পশ্চিমের কাহালু রেল স্টেশন থেকে রানীরহাট পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার। পরবর্তী ১২ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণের যৌক্তিকতা হলো : সান্তাহার থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকাগামী এবং ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া সান্তাহার হয়ে দিনাজপুরের পার্বতীপুরগামী ট্রেনগুলো যাতে বগুড়া স্টেশন এড়িয়ে সরাসরি চলাচল করতে পারে সেজন্য কাহালু-রানীরহাট রেললাইন নর্মিত হবে। এই দুই রেলপথ মিলিত হওয়ার কারণে বগুড়ানগরী থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরে রানীরহাটে একটি রেল জংশন নির্মিত হবে। নতুন এই রেলপথের বগুড়া থেকে সিরাজগঞ্জ পর্যন্ত পাঁচটি পয়েন্টে নতুন রেল স্টেশন নির্মিত হবে। এগুলো হলো : শেরপুর, চান্দাইকোনা, রায়গঞ্জ, কিষানদিয়া ও সদানন্দপুর। নতুন এই পথে সর্বাধুনিক সিগনালিং ব্যবস্থা, রেল সেতু, রেল ক্রসিং থাকবে।

বগুড়া-সিরাজগঞ্জ রেলপথ নির্মাণের দাবি দীর্ঘদিনের। যমুনায় বঙ্গবন্ধু সেতু চালুর সময়ই এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) উত্তরবঙ্গের সার্বিক উন্নয়নে এই রেলপথ নির্মাণের প্রস্তাব দেয়। পরে নানা কারণে তা আর বাস্তবায়িত হয়নি। এই অবস্থায় উত্তরঙ্গের ট্রেনগুলো সান্তাহার, নাটোর, ঈশ^রদী হয়ে ঢাকা চলাচল করে। মোট দূরত্ব দাঁড়ায় ৪শ’ থেকে ৪৫০ কিলোমটার। এর মধ্যে প্রায় দেড়শ’ কিলোমিটার ঘুরপথ। সময় লাগে ১২ থেকে ১৪ ঘণ্টা। নতুন রেলপথ নির্মিত হলে দূরত্ব ও সময় অনেক কমে যাবে।

২০১১ সালে সিরাজগঞ্জ ও ২০১৫ সালে বগুড়ার জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই রেলপথ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন। তারই ধারাবাহিকতায় কাজ এগিয়ে যাচ্ছে। এই রেলপথ নির্মাণ ব্যয়ের অর্থের সঙ্কুলান হয়েছে। গত বছর বাংলাদেশ সফরে আসা ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বাংলাদেশের যোগাযোগ ও বিদ্যুত খাতে ১৭ প্রকল্পে ৪৫০ কোটি ডলার (প্রায় ৩৬ হাজার কোটি টাকা) ঋণ সহায়তা চুক্তি করেছেন। এর মধ্যে বগুড়া-সিরাজগঞ্জ রেলপথ নির্মাণের অবকাঠামো আছে।

সুত্র:জনকন্ঠ, ২৩ মে ২০১৮


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।