শিরোনাম

কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইন সংস্কার এ মাসেই

কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইন সংস্কার এ মাসেই

নিউজ ডেস্ক :

প্রায় ১৫ বছর বন্ধ থাকার পর কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইনের সংস্কার কাজ শুরু হচ্ছে এ মাসেই। গত ১৬ জানুয়ারি ভারতীয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কালিন্দী রেল নির্মাণ কলকাতা ইন্ডিয়াকে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ সাইট হস্তান্তর করেছে। ১৩ জানুয়ারি রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলীয় জোনের জেনারেল ম্যানেজার আবদুল হাইয়ের নেতৃত্বে তিন সদস্যের প্রতিনিধিদল কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইনটি পরিদর্শন করে। ইতোমধ্যে রেলের ভূমির অবৈধ দখলদারদের নিজ দায়িত্বে সব ধরনের স্থাপনা সরিয়ে নিতে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। অন্যথায় একসঙ্গে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।

১৮৯৬ সালের ৪ ডিসেম্বর আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ের সঙ্গে কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশন যুক্ত হয়। ১৯৫৮-৬০ সালে এই রেলপথটি পুনর্বাসন করা হয়। অব্যবস্থাপনা ও সংস্কারের অভাবে এ রেললাইনে ঘন ঘন ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটতে থাকে। বিধ্বস্ত রেললাইনটি ট্রেন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠলে ২০০২ সালের ৭ জুলাই পুর্বঘোষণা ছাড়াই ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এর ফলে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, জুড়ী, বড়লেখা ও সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ পড়েন যোগাযোগ সংকটে। বেদখল ও নষ্ট হয়ে পড়ে ছয়টি রেলস্টেশনসহ কোটি কোটি টাকার সরকারি ভূমি।

পরিকল্পনা কমিশনের মতে, এই লাইন ভারতীয় সীমান্তে দ্বৈত গেজে রূপান্তরিত করলে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে আঞ্চলিক রেলওয়ে নেটওয়ার্ক এবং ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হতে পারবে। ফলে আঞ্চলিক বাণিজ্য ও পর্যটনের প্রসার ঘটবে। রেলপথটি আবার চালু হওয়ার খবর শুনে এলাকাবাসীর মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলীয় জোনের জেনারেল ম্যানেজার আবদুল হাই জানান, ফেব্রুয়ারির  শুরুতেই কুলাউড়া শাহবাজপুর রেললাইনের নির্মাণকাজ শুরু হবে। ১৬ জানুয়ারি ভারতীয় নির্মাণ প্রতিষ্ঠান কলকাতার কালিন্দি রেল নির্মাণ কোম্পানিকে সাইট হস্তান্তর করা হয়েছে। ব্রডগেজ এই রেললাইনটি চালু হলে কুলাউড়া থেকে শাহবাজপুর পর্যন্ত পাঁচটি ট্রেন চলাচল করবে। লোকাল ট্রেন ছাড়াও আন্তঃনগর ট্রেনের সঙ্গে ভারতীয় ট্রেনও চলবে। বন্ধ থাকাকালে রেলওয়ের জমি জবরদখল করে গড়ে তোলা সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের লক্ষ্যে রেলওয়ের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। নিজ উদ্যোগে অবৈধ স্থাপনা সরানো না হলে অভিযান চালিয়ে একযোগে সব স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে।

রেলওয়ের বিভাগীয় প্রকৌশলী আহসান জাবির জানান, আঞ্চলিক বাণিজ্য বাড়াতে ভারতীয় ঋণে ৫২ দশমিক ৫৪ কিলোমিটার রেলপথ পুনর্বাসন করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে ৪৪ দশমিক ৭৭ কিলোমিটার মেইনলাইন ও সাত দশমিক ৭৭ কিলোমিটার লুপ লাইন। এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য ২০১৫ সালের ২৬ মে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (একনেকে) সভায় ৬৭৮ কোটি ৫০ লাখ ৭৯ হাজার টাকার প্রকল্পটির (সংশোধিত) অনুমোদন দেওয়া হয়। মোট ব্যয়ের ১২২ কোটি টাকা দেবে বাংলাদেশ সরকার এবং বাকি ৫৫৬ কোটি টাকা ভারত সরকার বাংলাদেশকে ঋণ হিসেবে প্রদান করবে।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যৌথভাবে কুলাউড়া-শাহবাজপুর পরিত্যক্ত এ রেললাইনের সংস্কার কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। কিন্তু এর প্রায় তিন বছর পর শুরু হচ্ছে রেললাইন সংস্কার কাজ।

সুত্র:শেয়ার বিজ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৮


About the Author

RailNewsBD
রেল নিউজ বিডি (Rail News BD) বাংলাদেশের রেলের উপর একটি তথ্য ও সংবাদ ভিত্তিক ওয়েব পোর্টাল।